বেশী পরিমানে ফিচার ফোন আসছে বাংলাদেশে

চারিদিকে স্মার্টফোনের জয় জয়াকার হলেও দেশে এখনও ফিচার ফোনের চাহিদা বেশি। এ কারণে এ ধরনের হ্যান্ডসেটের আমদানি এখনও বেশি। অবশ্য স্মার্টফোন সেটের আমদানি বাড়লেও এখনও তা বেসিক বেসিক ফোনের অর্ধেক। তবে সব ধরনের সেট আমদানির পরিমান বেড়েছে।

বৈধপথে দেশে আসা হ্যান্ডসেটের পরিসংখ্যান এমনই জানাচ্ছে। ২০১৫ সালে মোট হ্যান্ডসেট আমদানি হয়েছে দুই কোটি ৭১ লাখ পিস, যা আগের বছরের তুলনায় ১০ দশমিক ২৪ শতাংশ বেশি।

গত বছর মোট আমদানি হ্যান্ডসেটের প্রায় অর্ধেক এক কোটি ৩৬ লাখ ৭৫ হাজার পিস ফিচার ফোন দেশে এসেছে। অন্যদিকে বেসিক ফোন ৭৮ লাখ এক হাজার ও স্মার্টফোন এসেছে ৫৬ লাখ ২৭ হাজার পিস।

Nokia-225-Phone

মোবাইল ফোন খাত সংশ্লিষ্টদের মতে, দেশে নতুন মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে এখনও গ্রাম বাংলার মানুষ বেশি। এদের বেশিরভাগই ফিচার ও বেসিক ফোন ব্যবহারে অধিক স্বাচ্ছ্যন্দ বোধ করেন। অনেকেই স্মার্টফোন প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচিত নন। এ কারণে নগরে স্মার্টফোন বেশি বিক্রি হলেও গ্রামে ফিচার ও বেসিক ফোন চলে বেশি।

মোবাইল ফোন ইম্পোটার্স অ্যাসোসিয়েশনের এ তথ্য অনুযায়ী চলতি ২০১৬ সালে ফোন আমদানি আরও বাড়বে। চলতি বছর মোট আমদানি তিন কোটি পিস ছাড়িয়ে যাবে। সংগঠনের নেতাদের মতে, স্মার্টফোনের আমদানি উল্লেখযোগ্য পরিমান বেড়ে হবে ৯০ লাখের বেশি।

আগের বছরের তুলনায় ২০১৫ সালে স্মার্টফোন আমদানির প্রবৃদ্ধি  সবচেয়ে বেশি। এ সময়ে প্রবৃদ্ধি ৩৯ দশমিক শূন্য আট শতাংশ। ২০১৪ সালে ৪০ লাখ ৪৬ হাজার স্মার্টফোন আমদানি হয়েছিল, যা ২০১৫ সালে এসে হয়েছে ৫৬ লাখ ২৭ হাজার।

আমদানির সার্বিক চিত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়- স্মার্টফোন, ফিচার বা বেসিক ফোন তিন ক্ষেত্রেই দেশীয় কোম্পানি সিম্ফোনির একক আধিপত্য।

গত বছর মোট স্মার্টফোনের মধ্যে ২৬ লাখ ৫৭ হাজার এনেছে সিম্ফোনি। এখানে তাদের মার্কেট শেয়ার ৪৭ শতাংশ। কোম্পানিটি গত বছর ফিচার ফোন এনেছে ৪৮ লাখ ১২ হাজার। বাজারের ৩৫ শতাংশ ফিচার ফোনই এনেছে কোম্পানিটি। গত বছর ৩১ লাখ ৪১ হাজার পিস বেসিক ফোন এনে মোট বাজারের ৪০ শতাংশ দখল নিয়েছে তারা।

বেসিক ও ফিচার ফোন আমদানিতে এরপরের অবস্থান ইউনম্যাক্সের। তারা ফিচার ফোন এনেছে ১৬ লাখ ৬২ হাজার পিস, মোট বাজারের ১২ শতাংশ তাদের হাতে। ফোন এনেছে চার লাখ ছয় হাজার পিস।

দক্ষিণ কোরিয়ান কোম্পানি স্যামসাংয়ের দখলেও রয়েছে স্মার্টফোনের বাজারের বড় অংশ। গত বছর কোম্পানিটি ৮ লাখ ৬৩ হাজার স্মার্টফোন বাজারে এনেছে, যা স্মার্টফোন বাজারের ১৫ শতাংশ বাজার দিয়েছে।

অ্যাসেশিয়েসনের সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক বলেন, বাজারের মোট হ্যান্ডসেটের ৩০ শতাংশ এখনও পর্যন্ত রয়েছে অবৈধপথে আসা আমদানিকারদের হাতে। সে কারণে তারা সব সময় সঠিক চিত্রটি দিতে পারেন না।

তবে হ্যান্ডসেটের চাহিদা প্রতিদিনই বাড়ছে ও এক বছরে এখন তা সাড়ে তিন কোটি থেকে চার কোটি পিসের মধ্যে রয়েছে বলে জানান রেজওয়ানুল হক।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY