কমিউনিকেশন এর মৌলিক ধারনা (Basic Communication)

কমিউনিকেশন শব্দের অর্থ হচ্ছে “যোগাযোগ”।প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ বিভিন্ন ভাবে নিজেদের মধ্যে তথ্য বা ভাবের বিনিময় করে আসছে। তখন থেকে ধীরে ধীরে এই Communication বা যোগাযোগ প্রক্তিয়ায় এসেছে আধুনিকতা গতিশীলতা এবং নির্ভরতা। নির্ভরতা কেন বললাম? কেননা যোগাযোগ ছাড়া সম্পূর্ন পৃথীবিই অচল।

effective-communication-achievable-student-job-skill-number-1-effectivecommunication1

মূলত কমিউনিকেশন বলতে বুঝায় এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ডাটা স্থানান্তর করার প্রক্রিয়াকে। কমিউনিকেশন পৃথীবিকে একটি “Global Village” এ রুপান্তর করেছে। যেমন ধরুন আপনি এক দেশ থেকে অন্য দেশে বা এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে অথবা আপনি আপনার বন্ধুর সাথে  যোগাযোগের মাধ্যমে আপনি আপনার মত বিনিময় করতে পারচ্ছেন।

Non-capisco-image

এই টিউনে আজ লিখেছি কমিউনিকেশনের কয়েকটি মৌলিক বিষয় সম্পর্কে।

কমিউনিকেশন :-

communication1

Communication এর  উপাদান নিয়ে আজকে  ইলেক্ট্রনিক Communication আলোচনা করব

(ক) টেলি কমিউনিকেশন (খ) ডাটা কমিউনিকেশন।

 ইলেক্ট্রনিক কমিউনিকেশনঃ

বিভিন্ন ধরনের ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে যে কমিউনিকেশন বা যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে ওঠে  বা সৃষ্টি হয় তাকে  ইলেক্ট্রনিক কমিউনিকেশন বলে। যেমন ধরুনঃ- রেডিও,টেলিভিশন,ফিল্ম,ফ্যাক্স,স্যাটেলাইট,টেলিগ্রাফ ইত্যাদি ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে যে যোগাযোগ বা কমিউনিকেশন ব্যবস্থা গড়ে ওঠে তাকেই ইলেক্ট্রনিক কমিউনিকেশন বলে।

communication

ইলেক্ট্রনিক কমিউনিকেশন মূলত ইলেক্ট্রনিক Information Sending, Receiving, Processing কে বুঝায়। Electronic Communication শুরু হয় ১৯৪০ সালের টেলিগ্রাফি তারের মধ্য দিয়ে। পরবর্তীতে দশকে এটি টেলিফোনে উন্নত হয়। T radio Tube আবিষ্কার করার পর ইলেক্ট্রনিক কমিউনিকেশনে Radio Technology ব্যবহ্রত হয়। এরপর থেকেই মূলত কমিউনিকেশনের স্বর্নযুগ শুরু হয়। ক্রমেই ট্রাঞ্জিষ্টা্‌র, IC,সেমি কন্ডাক্টর ডিভাইস এর আবিষ্কারের ফলে কমিউনিকেশনে এক বিরাট ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি হয়। স্যাটেলাইট এর ব্যবহার পৃথীবিকে করে দিয়েছে মানুষের হাতের মুঠোয়

(ক) টেলি কমিউনিকেশনঃ

দূরবর্তী স্থানে যোগাযোগ বা মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য যে মাধ্যমটি ব্যবহার হ তাকে আমরা বলে থাকি Tele Communication. এখানে Tele শব্দের অর্থ হচ্ছে দূরবর্তী আর Communication শব্দের অর্থ যোগাযোগ।

global-telecommunication-10358510

মোটকথা Tele Communication হচ্ছে “দূরবর্তী যোগাযোগ এর জন্য বিভিন্ন উপায়ে টেলিফোন ব্যবহারের মাধ্যমে যে যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে ওঠে তাকে টেলি কমিনিকেশন (Tele Communication) বলে। ”

(খ) ডাটা কমিউনিকেশনঃ

ক্যবল বা তারের অথবা তারবিহীন অন্য মাধ্যমে দুইটি ডিভাইসের মধ্যে তথ্য বা Data Exchange অর্থাৎ ডাটা আদান প্রদান করার পদ্ধতিকে ডাটা কমিউনিকেশন বলে।

data_communications_and_networking

Data Communication হওয়ার জন্য কমিউনিকেটিং ডিভাইস (যে সকল ডিভাইস দ্বারা তথ্য আদান-প্রদান করা হবে)  কে অবশ্যই Communication সিস্টেমের অংশ হতে হবে যা হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার এর সমন্বয়ে তৈরী।

 

 

 

মূলত ICT এর স্টুডেন্টদের জন্য লিখা এই টিউনটি। স্টুডেন্টরা শেয়ার করুন আর জানিয়ে দিন আপনার বন্ধুদেরকেও।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY